মঙ্গলবার   ০৫ মার্চ ২০২৪ || ২১ ফাল্গুন ১৪৩০

প্রকাশিত: ১২:১৭, ১১ ডিসেম্বর ২০২৩

জেলে বসে আইন পড়ে নিজেই মামলা লড়ে জিতলেন আসামি

জেলে বসে আইন পড়ে নিজেই মামলা লড়ে জিতলেন আসামি
সংগৃহীত

১২ বছর আগে দুই কনস্টেবলকে হত্যার দায়ে করা মামলায় কারাগারে যেতে হয় তাঁকে। কিন্তু হত্যাকাণ্ডের সময় ঘটনাস্থলেই ছিলেন না তিনি। তবে দমে যাননি, কারাগারে আইন বিষয়ে পড়াশুনা করেন। পরে জামিনে বেরিয়ে নিজের মামলা নিজেই লড়ে ১২ বছর পর পান বেকসুর খালাস। 

ভারতের উত্তর প্রদেশের মেরুত নামক এলাকায় এমন ঘটনাই ঘটেছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, ২০১১ সালে খুনের মিথ্যা মামলায় কারাগারে পাঠানো হয় অমিত চৌধুরী নামের ১৮ বছর বয়সী এক তরুণকে। কিন্তু তিনি ঘটনাস্থলেই ছিলেন না।

২০১১ সালে উত্তর প্রদেশের মেরুত এলাকায় দুজন পুলিশ কনস্টেবল খুন হন। এতে নড়েচড়ে বসে কর্তৃপক্ষ। দোষীদের দ্রুত শাস্তির আওতায় আনতে নির্দেশ দেন তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী। ১৮ বছর বয়সী অমিত চৌধুরীকে অভিযুক্ত করা হয়। বলা হয়, তিনি একজন গ্যাংস্টার।

কিন্তু অমিত চৌধুরী একজন কৃষকের ছেলে। তাঁর স্বপ্ন, তিনি একদিন সামরিক বাহিনীতে যোগ দেবেন। ঘটনার সময় তিনি ওই গ্রামেই ছিলেন না। 

এরপরও অমিতকে গ্রেপ্তার করে পাঠানো হয় কুখ্যাত মুজাফফরনগর জেলে। ওই জেলে আগে থেকেই এলাকার সবচেয়ে বড় গ্যাংস্টারেরা ছিলেন। সেখান থেকে অপরাধমূলক কাজ চালাতেন তারা। 

সেই কারাগারে বসেই অমিত সিদ্ধান্ত নেন, নিজেই নিজের মামলা লড়বেন। কিন্তু গ্যাংস্টারদের কারণে তিনি ভালোভাবে থাকতেই পারছিলেন না। সবাই তাঁকে নিজেদের দলে নেওয়ার চেষ্টা শুরু করে। তবে জেলারের সহায়তায় তিনি এমন একটি কক্ষে থাকার সুযোগ পান, যেখানে গ্যাংস্টারদের প্রভাব নেই। 

সেই কারাগারেই পড়াশুনা শুরু করেন অমিত। আইন নিয়ে সবকিছু শিখতে শুরু করেন। এভাবে দুই বছর কেটে যাওয়ার পর জামিন পান তিনি। বেরিয়েই প্রাতিষ্ঠানিক পড়াশুনা করেন তিনি। এরপর আইনজীবী হয়ে নিজেই নিজের মামলা লড়েন। 

সম্প্রতি সেই মামলায় জিতেছেন অমিত। তবে জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু বছর কেটে গেছে কারাগারে। অমিত বলেন, ‘এ নিয়ে আফসোস নেই। এখন আমি সমাজে কাছে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারছি। এটা আমার জন্য বড় পাওয়া।’

সূত্র: Independent Tv

সর্বশেষ

জনপ্রিয়