সোমবার   ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ || ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০

প্রকাশিত: ০৬:০৮, ১৬ মার্চ ২০২৩

দুই পা হারালেও থামেননি অদম্য হানিফ

দুই পা হারালেও থামেননি অদম্য হানিফ

বাড়ির আঙিনায় এক পরিপাটি গোয়াল ঘর। গরুর খাবারের পানি ও ঘর পরিষ্কারের জন্য স্থাপন করেছেন বিশালাকার পানির ট্যাংক। প্রতিদিন ভোরে ঘুম থেকে উঠে নিজেই পরিচর্যা শুরু করেন। গরুর খাবার, গোসল ও চিকিৎসাসহ সব কাজ নিজ হাতে করেই তৃপ্তি পান। এভাবেই কঠোর পরিশ্রম করছেন দুই পা হারানো মো. হানিফ।

দুই হাত দিয়ে সকল প্রতিবন্ধকতাকে পেছনে ফেলে গড়ে তুলেছেন গরুর খামার। ভাগ্য পরিবর্তনের চেষ্টা করছেন এই অদম্য খামারি। এ খামারের টাকা দিয়ে তিন মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন। সংসার চালাচ্ছেন। খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলার পূর্ব দমদম গ্রামের মৃত আবদুল জব্বারের ছেলে মো. হানিফ।

সংসারে স্ত্রী, চার ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে হানিফের। ১৯৯১ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই পা হারান তিনি। দমে যাননি তিনি। গত বছর আটটি গরুই দিয়েই বাড়ির আঙিনায় গরুর খামার গড়ে তোলেন। বর্তমানে সেখানে সাতটি ষাঁড় গরু রয়েছে। আগামী ঈদুল আজহার আগে সেগুলো বিক্রি করে লাভের আশা করছেন হানিফ।

khagrachari

প্রতিবন্ধিতা জয় করে হানিফ খামারির পাশাপাশি পানছড়ি উপজেলা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংঘের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। সরকারিভাবে স্বল্প সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ পেলে বড় আকারে খামার করতে চান। এ ব্যাপারে প্রশাসনের সহযোগিতা চান হানিফ।

তিনি বলেন, 'সাধারণভাবে খামারে কাজ করে যাচ্ছি । কোনো সমস্যা হয় না । সরকারিভাবে দীর্ঘমেয়াদী লোন পেলে আরও বড় আকারে খামার করার ভাবনা-চিন্তা আছে । এ ব্যাপারে প্রশাসনের সহযোগিতা আশা করি।'   

khagrachari

পানছড়ি উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা সমাপন চাকমা বলেন, কৃষি ব্যাংক থেকে লোন নিতে চাইলে প্রত্যয়নপত্রসহ সব ধরণের সহযোগিতা প্রদান করা হবে । তাছাড়া গরুর চিকিৎসার ব্যাপারেও আমরা তৎপর রয়েছি । 

খাগড়াছড়ি জেলা প্রতিবন্ধী অফিসার মো: শাহজাহান বলেন, কারো করুণা বা দয়া নয়। অদম্য মনোবল আর ইচ্ছাশক্তিই যে বেকারত্ব ঘোচাতে পারে এর জলন্ত উদাহরণ শারিরীক প্রতিবন্ধী হানিফ। তিনি উৎসাহ যোগানসহ তার সফলতা কামনা করি।

জাগ্রত জয়পুরহাট

সর্বশেষ

জনপ্রিয়

সর্বশেষ

শিরোনাম