• মঙ্গলবার   ৩১ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৮ ১৪২৯

  • || ০৯ রজব ১৪৪৪

জাগ্রত জয়পুরহাট

‘অগ্নিকন্যা’ মতিয়াকে সংসদ উপনেতা করে প্রজ্ঞাপন জারি

জাগ্রত জয়পুরহাট

প্রকাশিত: ১৭ জানুয়ারি ২০২৩  

প্রয়াত সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর জায়গায় অগ্নিকন্যা খ্যাত বেগম মতিয়া চৌধুরীকে জাতীয় সংসদের উপনেতা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সংসদ সচিবালয়। মঙ্গলবার (১৭ জানুয়ারি) সিনিয়র সচিব কে এম আব্দুস সালাম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।s

এর আগে গত ১২ জানুয়ারি রাতে সংসদ ভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের সভায় সংসদ উপনেতার বিষয়টি উত্থাপন করেছিলেন দলীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। পরে প্রস্তাবটিতে সমর্থন জানান আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের সাধারণ সম্পাদক ও জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন।

বেগম মতিয়া চৌধুরী আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর একজন সদস্য। পাশাপাশি তিনি শেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য। সরকারের সাবেক কৃষিমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

১৯৪২ সালের ৩০ জুন পিরোজপুরে জন্মগ্রহণ করেন মতিয়া চৌধুরী। বামপন্থী রাজনীতি দিয়ে রাজনৈতিক জীবন শুরু করেছিলেন তিনি। শুরুতে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) সদস্য থাকলেও পরবর্তীতে যোগ দেন আওয়ামী লীগে। ১৯৭১ সালে তিনি আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হয়েছিলেন। প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সময়কালে তিনি বেশ কয়েকবার গ্রেফতারও হন।

শিক্ষাজীবনে ইডেন কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় ছাত্র রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন মতিয়া চৌধুরী। এরপর ১৯৬৫ সালে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি নির্বাচিত হন। পরে ১৯৬৭ সালে ‘অগ্নিকন্যা’ নামে পরিচিতি পাওয়া মতিয়া পূর্ব পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টিতে যোগ দেন এবং এর কার্যকরী কমিটির সদস্য হন।

১৯৭০ ও ১৯৭১ এর মাঝামাঝি সময়ে তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম, প্রচারণা, তদবির এবং আহতদের শুশ্রূষায় সক্রিয় অংশগ্রহণকারী ছিলেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য ২০২১ সালে বাংলা একাডেমি তাকে সম্মানসূচক ফেলোশিপ প্রদান করে।

উল্লেখ্য, ২০২২ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর মৃত্যুতে সংসদ উপনেতার পদটি শূন্য হয়। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাজেদা টানা তৃতীয়বারের মতো একাদশ জাতীয় সংসদের উপনেতা হিসেবে নিয়োগ পেয়েছিলেন। ২০০৯ সাল থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সাজেদা চৌধুরী সংসদের উপনেতা ছিলেন।

জাগ্রত জয়পুরহাট
জাগ্রত জয়পুরহাট