• মঙ্গলবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৯

  • || ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

জাগ্রত জয়পুরহাট

বারোমাসি তরমুজ চাষে সফল আমিরুল, আয় লক্ষাধিক টাকা!

জাগ্রত জয়পুরহাট

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০২২  

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাটে বারোমাসি ফসল হিসেবে তরমুজ চাষে সফল আমিরুল ইসলাম। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগীতায় ব্ল্যাক বেবি নামক জাতের হাইব্রিড তরমুজ চাষ করে আয় করছেন লক্ষাধিক টাকা। এদিকে আমিরুলের সফলতা দেখে আশেপাশের অনেক কৃষকরা বারোমাসি তরমুজ চাষে আগ্রহী হচ্ছেন।

জানা যায়, আমিরুল ইসলাম ভোলাহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সার্বিক সহযোগীতায় তরমুজের বীজ সংগ্রহ করে ২৫ শতাংশ জমিতে চাষ শুরু করেন। দুই মাস আগে রোপন করা বীজে এখন ফল ধরেছে। এখন আমিরুল সেই তরমুজ সফলতার সাথে বাজারজাত করতে সক্ষম হয়েছে।

তরমুজ চাষি আমিরুল ইসলাম বলেন, ভোলাহাট কৃষি অফিসের সহযোগীতায় গত জুলাই মাসের শুরুতে ২৫ শতাংশ জমিতে তরমুজের বীজ রোপন করি। কৃষি অফিসের পরামর্শে ও তাদের সরবরাহকৃত পলিথিন মালচিং প্রয়োগে খুব অল্প সময়ের মধ্যে গাছে ফল ধরে। জমিতে ফলন খুব ভালো হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, বীজ ও মালচিং ছাড়া চাষ করতে আমার ২৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। সব তরমুজ বিক্রি হলে প্রায় লক্ষাধিক টাকা আয় হবে। এই তরমুজ বাজারজাত করার পর একই জমিতে আবার তরমুজ চাষ করতে পারবো। শীতের আগেই এই তরমুজ বাজারজাত করতে পারবো। বারোমাসি এই তরমুজের গন্ধ ও স্বাদ অতুলনীয় হওয়ায় দিন দিন এর চাহিদা বাড়ছে। ফলে এই তরমুজ চাষ করে লাভবান হতে পারছি।

ভোলাহাট উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সুলতান আলী বলেন, এবছর ভোলাহাট উপজেলায় আমরা প্রায় ১০০ শতাংশ জমিতে বারোমাসি এ তরমুজ উৎপাদনে কাজ করছি। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে চাষি আমিরুল ইসলামকে সহযোগীতা করার চেষ্টা করা হয়েছে যা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। এই তরমুজের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। তাই আমরাও এই তরমুজ চাষে কৃষকদের উৎসাহিত করছি।

জাগ্রত জয়পুরহাট
জাগ্রত জয়পুরহাট