শনিবার   ১৩ এপ্রিল ২০২৪ || ২৯ চৈত্র ১৪৩০

প্রকাশিত: ১০:৩৯, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

সুস্থ থাকতে চুম্বনের এই ধরনগুলো জানা আছে কি?

সুস্থ থাকতে চুম্বনের এই ধরনগুলো জানা আছে কি?
সংগৃহীত

প্রেমের সম্পর্কে ‘চুম্বন’ করা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। শুধু কি তাই, যে কোনও প্রিয়জনের সঙ্গে ভালোবাসা বিনিময়ের সবচেয়ে সুন্দর উপায় হলো চুম্বন, এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই। 

চুম্বন যে শুধু প্রেমকে মধুময় করে তাই-ই নয়, স্বাস্থ্যের পক্ষেও দারুণ উপকারী প্রিয়জনকে চুম্বনের অভ্যাস। নিয়ম করে শরীরচর্চার পাশাপাশি রোজ চুমু খেলেও স্বাস্থ্য থাকবে ঝরঝরে। মনেও থাকবে আনন্দ। জীবনে আসবে উদ্যম। 

এখন কথা হলো চুমুর প্রকারভেদ অনেক। ধরন অনুয়ায়ী বদলে যায় চুমুর নামও। প্রিয়জনকে চুমু খাওয়ার আগে জেনে নিন, কোন চুমুর কি উপকারিতা-

কপালে চুমু খাওয়া: প্রথম ঘনিষ্ঠতা বা প্রথম বন্ধুত্ব ঘটলে কপালে চুমু খেয়ে ভালবাসা প্রকাশ করা হয়ে থাকে। একে স্নেহের চুম্বনও বলা যায়। এটাকে সাধারণত ‘স্টার্টার কিস’ বলা হয়ে থাকে।

হাতে চুমু খাওয়া: কারো হাত সামনের দিকে টেনে করতলের পিছনে চুমু খাওয়ার রেওয়াজ ইউরোপে বহু প্রাচীন। এর সাহায্যে অপরকে সম্মান ও সৌজন্য প্রকাশ করা বোঝায়।

ফ্রেঞ্চ কিস: অনেকেই মনে করেন এই চুমুর সঙ্গে ঠোঁটের সম্পর্ক আছে। তবে এই চুমুতে ঠোঁটের কোনও গুরুত্ব সে ভাবে নেই। এই চুমুর ক্ষেত্রে দু’জনের জিহ্বার সংস্পর্শ হয়। এই চুমুতে পারদর্শী হতে নাকি বেশ কয়েক বছর সময় লেগে যায়! তবে, এই চুমুতে বেশ রোম্যান্টিকতার ছোঁয়া রয়েছে। একে অপরকে নিবিড় ভাবে কাছে পাওয়ার বহিঃপ্রকাশ হতে পারে এই চুমু।

সিঙ্গল লিপ কিস: স্বামী ও স্ত্রী বা প্রেমিক-প্রেমিকারা খুব ঘনিষ্ঠ মুহূর্তে এই ধরনের চুমু খেয়ে থাকে। নামের মতোই এই চুমুর ক্ষেত্রে একটি মাত্র ঠোঁটের ব্যবহার করা হয়। এই চুমুর ধরন খানিকটা স্যান্ডউইচের মতো। এক জনের দু’টি ঠোঁটের মাঝে অপর জনের একটি ঠোঁট থাকে।

এস্কিমো কিস: নাম শুনেই বোঝা যায় এই চুমু এস্কিমোদের থেকে আমদানি করা হয়েছে। এই চুমুর বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, এক জনের নাক অপর জনের নাকের সুঙ্গে ঘষাঘষি করা, কিছুটা সময় ধরে। মূলত স্নেহ প্রকাশ করতেই এই চুমুর অবতারণা। কেবল প্রেমিক-প্রেমিকাদের মধ্যেই নয়, পরিবারের সদস্যদের মধ্যেও এই প্রকার চুমুর আদানপ্রদান হয়।

লিঙ্গারিং কিস: এই চুমুর ক্ষেত্রে জিহ্বার কোনও রকম ব্যবহার হয় না। মুখ বন্ধ করে শুধু এক জনের ঠোঁট অপর জনের ঠোঁটকে আলতো করে ছুঁয়ে থাকে। তার পর খানিক ক্ষণ এই ভাবেই থাকা। খুব গভীর ভালবাসার প্রকাশ করতে এই ধরনের চুমু খাওয়া হয়।

ইয়ারলোব কিসিং: এই চুম্বনে ঠোঁটে চুমু না খেয়ে কানের লতিতে চুমু খেতে হয়। এতে অদ্ভুত উদ্দীপনা তৈরি হয়। কারণ, কানে অনেক ‘নার্ভ এন্ডিং’ রয়েছে। অর্থাৎ, অনেক স্নায়ুই কানের কাছে এসে শেষ হয়। এই চুমু সাধারণত প্রেমের সম্পর্কে খাওয়া হয়ে থাকে।

সূত্র: ডেইলি-বাংলাদেশ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়

সর্বশেষ

শিরোনাম

আয়ারল্যান্ডের সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দনসুইজারল্যান্ডে স্কলারশিপ পাওয়ার উপায় কিঈদের দিন ৩ হাসপাতাল পরিদর্শন স্বাস্থ্যমন্ত্রীরঈদের জামাতে নামাজরত অবস্থায় ভাইয়ের মৃত্যু, খবর শুনে মারা গেলেন বোনওসদরঘাটে শেষ বিল্লালের পুরো পরিবারবৈসাবি উৎসবের আমেজে ভাসছে ৩ পার্বত্য জেলাব্যাংক ডাকাতি থেকে বাঁচতে জয়পুরহাটে কড়া নিরাপত্তাএলাকায় মসজিদ ছিল না, জমি কিনে মসজিদ বানালেন সবজি বিক্রেতাবায়তুল মোকাররমে ঈদের জামাতে মুসল্লিদের ঢলআজ ঈদ, মুসলমানদের ঘরে আনন্দের বন্যাভারতে পাচারের সময় কোটি টাকা মূল্যের সাপের বিষ উদ্ধারজাহাজে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন জিম্মি নাবিকরা