• সোমবার   ০২ আগস্ট ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১৮ ১৪২৮

  • || ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

জাগ্রত জয়পুরহাট

ক্ষেতলালে অস্থায়ী ঈদগাহের ব্যবস্থা করলেন হুইপ স্বপন

জাগ্রত জয়পুরহাট

প্রকাশিত: ১৬ জুলাই ২০২১  

জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠটি প্রয়োজনের তুলনায় খুবই ছোট। মাঝখানে আছে একটি কবর। ফলে ঈদের নামাজ পড়তে কষ্ট হয় মুসল্লিদের। এর উপর এবারে সেখানে চলছে একটি ভবন নির্মাণের কাজ। এমন অবস্থায় আসন্ন ঈদুল আযহায় বিপুল সংখ্যক মানুষের নামাজ আদায় সম্ভব হবে না। মাঠের কয়েকটি ছবিসহ এমন সমস্যার কথা গতকাল রাতে ফেসবুকে পোস্ট করেন স্থানীয় ছাত্রলীগের এক নেতা। এরপরই দ্রুততার সঙ্গে ক্ষেতলাল উপজেলার মানুষদের জন্য এবারের ঈদের নামাজের জন্য বিকল্প একটি ঈদগাহ মাঠের ব্যবস্থা করলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন।

জানতে চাইলে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়া ক্ষেতলাল উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জুল আরশ শুভ কালের কণ্ঠকে বলেন, স্থানীয় খোশবদন ঈদগাহ মাদ্রাসা মাঠে প্রতিবছর ক্ষেতলাল উপজেলার মানুষেরা ঈদের নামাজ আদায় করে। মাঠটি অনেক পুরনো ও ছোট। এতো ছোট মাঠে উপজেলার বিপুল সংখ্যক মানুষের ঈদের নামাজ আদায় কষ্ট হয়। মাঠের মাঝখানে একটি কবর থাকায় নামাজে অসবিধা হয়। এখন নতুন ভবন নির্মাণ চলছে। ফলে এবারে মাঠের যা অবস্থা তাতে নামাজ আদায় সম্ভব নয়। আমরা দীর্ঘদিন ধরে প্রশাসনের অনেককে বলার চেষ্টা করেছি। কাজ হয়নি। বাধ্য হয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেই। বিষয়টি আমলে নিয়ে হুইপ মহোদয় বিকল্প একটি মাঠের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। আমরা খুশি। হুইপ মহোদয়ের কাছে আমাদের অনুরোধ তিনি যেন একটা স্থায়ী ঈদগাহের ব্যবস্থা করে দেন।

জানা গেছে, গতকাল রাতে ফেসবুকে পোস্ট চোখে পড়ার পরেই স্থানীয় সংসদ সদস্য আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন পোস্টে কমেন্ট করে স্থানীয়দের কাছে করণীয় নিয়ে পরামর্শ চান। তিনি ক্ষেতলাল উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও, পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতিকে উপজেলা সদরের মাঠগুলি পরিদর্শন করে সুবিধাজনক স্থান নির্ধারণের অনুরোধ করেন।

আজ সকালেই সকলে মিলে মাঠ পরিদর্শন করে দুইটি মাঠে নামাজ আদায় সম্ভব বলে হুইপ স্বপনকে জানান। তিনি ক্ষেতলাল সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উপজেলার কেন্দ্রীয় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত করার সিদ্ধান্ত দেন।

জাগ্রত জয়পুরহাট
জাগ্রত জয়পুরহাট