• মঙ্গলবার   ২৪ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪২৯

  • || ২২ শাওয়াল ১৪৪৩

জাগ্রত জয়পুরহাট

মৌ মৌ গন্ধে ঘ্রাণ ছড়াচ্ছে আমের মুকুল, বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

জাগ্রত জয়পুরহাট

প্রকাশিত: ২০ জানুয়ারি ২০২২  

পল্লীকবি জসীম উদ্দীনের 'মামার বাড়ি' আয় ছেলেরা আয় মেয়েরা ফুল তুলিতে যাই, ফুলের মালা গলায় দিয়ে মামার বাড়ি যাই। ঝড়ের দিনে মামার বাড়ি আম কুড়াতে সুখ, পাকা জামের মধুর রসে রঙিন করি মুখ  কবিতার পংক্তিগুলো বাস্তবে রূপ পেতে বাকি রয়েছে আর মাত্র কয়েক মাস। জয়পুরহাটের কালাই উপজেলায় আম গাছে মুকুল আসতে শুরু করেছে। গাছে গাছে ফুটেছে আমের মুকুল চারদিকে ছড়িয়ে পড়েছে এই মুকুলের পাগল করা ঘ্রাণ।

ইতিমধ্যে গাছে গাছে মুকুল দেখা দিতে শুরু করেছে। বাতাসে মিশে মৌ মৌ গন্ধে মানুষের মনকে করছে বিমোহিত । মধুমাসের আগমনী বার্তা দিচ্ছে আমের মুকুল। সময় যত যাচ্ছে দিন দিন তা আরো বাড়ছে। গাছে গাছে ফুটছে আমের ছোট বড় অনেক মুকুল। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে মৌ মৌ গন্ধে আমের মুকুলের ঘ্রাণ। দেখে মনে হচ্ছে গতবছরের তুলুনায় চলতি মৌসুমে  আম গাছ গুলিতে মুকুলের পরিমাণ বেশি। উপজেলার  আমচাষি এবং সংশ্লিষ্ট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর এবার আমের বাম্পার ফলনের আশা করছেন। তবে আমের ফলন নির্ভর করছে আবহাওয়ার ওপর। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবছর আমের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। এই আশায় বুক বেধে আমচাষিরা শুরু করেছেন পরিচর্যা। তাদের আশা, চলতি মৌসুমে তারা আম থেকে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, আম বাগানে কেবলই ছোট বড় অনেক মুকুল দেখতে অসাধারণ। ওই সব আমগাছে পুরো মুকুল ফুটতে আরও কয়েক দিন সময় লাগবে। সবুজ আর হলুদের মহামিলনে আমগাছের ফুলের সুভাস ছরিয়ে পরেছে আশপাশে।  মুকুলে মুকুলে আছে গাছের প্রায় প্রতিটি ডালপালা। চারদিকে ছড়াচ্ছে সেই মুকুলের সুবাসিত পাগল করা ঘ্রাণ। আমের মুকুলের মিষ্টি ঘ্রাণে মৌ মৌ করছে প্রকৃতি। একইসাথে মধু সংগ্রহ করছে মৌমাছি। তারা দল বেধে মধু সংগ্রহ করতে ব্যস্ত। উপজেলায় এবার মৌসুমের শুরুতে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় মুকুলে ভরে গেছে আমবাগানসহ ব্যক্তি উদ্যোগে লাগানো আম গাছগুলোতে। উপজেলায় রুপালি, নেংড়া, হাড়িভাঙ্গা, বারি-৪,বারি-৫, বারি-২, ফজলি ও আশ্বিনায় ইত্যাদি  জাতের আম গাছ রয়েছে। তবে বড় আকারের চেয়ে ছোট ও মাঝারি আকারের গাছে বেশি মুকুল ফুটেছে। 

উপজেলার জমিনপুর গ্রামের পলাশ, রঘুনাথপুর গ্রামের তাহরিম আল-হাসান ও বাঘবপুর গ্রামের তাজুলসহ অনেক আম চাষি জানান, এবার আগেই মুকুল এসেছে। এখন আমের ভালো ফলন পেতে ছত্রাকনাশক প্রয়োগসহ আম গাছে পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। তাদের বাগানের অধিকাংশ গাছ-ই এরইমধ্যে মুকুলে ছেয়ে গেছে। এবার কুয়াশা কম থাকায় মুকুল ভালোভাবে ফুটছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এ বছর তারা আমের বাম্পার ফলন পাবেন বলে তারা আশা করছেন।কালাই উপজেলার কৃষি অফিসার মোছা.নীলিমা জাহান বলেন, চলতি বছর আমের মুকুল এবং আমের জন্য যেমন আবহাওয়ার প্রয়োজন, ঠিকভাবে  তা বিরাজ করছে। জানুয়ারি থেকে ফেব্রয়ারি মাস পর্যন্ত আম গাছে মুকুল আসার আদর্শ সময়। প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবং আম চাষিরা সময়মতো আমগাছে পরিচর্যা করলে চলতি মৌসুমে আমের ভালো ফলন পাবেন বলে আশা করছি ।

জাগ্রত জয়পুরহাট
জাগ্রত জয়পুরহাট