• মঙ্গলবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৯

  • || ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

জাগ্রত জয়পুরহাট

জয়পুরহাটে শিশু হত্যায় ৪ জনের যাবজ্জীবন

জাগ্রত জয়পুরহাট

প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০২২  

জয়পুরহাটে আট বছরের শিশু তানভীর হত্যা মামলায় চারজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে আসামিদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।  সোমবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে জয়পুরহাট অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মো. নুরুল ইসলাম এ আদেশ দেন। রায় ঘোষণার সময় চার আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- ক্ষেতলাল উপজেলার সূর্যবান গ্রামের মৃত মোবারক মন্ডলের ছেলে বাবলু, একই গ্রামের মৃত ইংরাজ মন্ডলের ছেলে আমিনুল ইসলাম লালু, মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে আব্দুল হামিদ ও ফিদা মিয়ার ছেলে কাজল।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০০৮ সালের ৩ মে তানভীরের বাবা ওবাইদুর রহমান ও মা শিরিন আক্তার কাজের জন্য বাইরে যান। ফিরে এসে সন্ধ্যার দিকে ছেলেকে না পেয়ে সন্ধান শুরু করেন। পরে বাড়ির পাশের পুকুরে ভাসমান মরদেহ পাওয়া যায়। পুকুরপাড়ে মাইনুল ইসলাম নামে এক কিশোরকে দেখে সন্দেহ হয়।

জমি সংক্রান্ত বিরোধ এবং হুমকি দেওয়ার জের ধরে মাইনুল ইসলাম (১৬), বাবলু (৪৫), আমিনুল (৪৮), আব্দুল হামিদ (৪৫), ফিদা মিয়া (২৪) ও নয়নকে (১৬) আসামি করে ওবাইদুর বাদী হয়ে ঘটনার দিন থানায় মামলা করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তৎকালীন ক্ষেতলাল থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক সিদ্দিকুর রহমান তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পত্র দেন। আদালত ২০০৮ সালের ১২ আগস্ট অভিযোগপত্র গ্রহণ করেন।

জয়পুরহাট জজ কোর্টের সরকারি কৌঁসুলি নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল বলেন, মামলার দুই আসামি মাইনুল ও নয়ন নাবালক হওয়ায় বিচারক অনেক আগেই তাদের খালাস দিয়েছেন। আর চারজন আসামিকে আজ যাবজ্জীবন কারাদণ্ডসহ ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও দুই বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারক। আসামিদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাওয়ার কথা জানিয়েছেন বাদীপক্ষের আইনজীবী আহসান হাবিব চপল। তিনি বলেন, মামলার প্রধান আসামিসহ দুজন নাবালক হওয়ায় নারী ও শিশু আদালতের বিচারক অনেক আগেই তাদের খালাস করে দিয়েছেন। আজ অন্য আসামিদের সাজা দিয়েছেন। আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করে প্রধান আসামিসহ দুজনকে খালাস দেওয়ার বিষয়টি অবগত করব।

জাগ্রত জয়পুরহাট
জাগ্রত জয়পুরহাট