• মঙ্গলবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৯

  • || ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

জাগ্রত জয়পুরহাট

যে দোয়া পড়লে আল্লাহ জ্ঞান বাড়িয়ে দেন

জাগ্রত জয়পুরহাট

প্রকাশিত: ২১ নভেম্বর ২০২২  

জ্ঞান মহান আল্লাহপ্রদত্ত অনন্য নেয়ামত। অমূল্য এই সম্পদ যাদের নসিব হয়, তারা পরম ভাগ্যবান। আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে বলেছেন, ‘যাকে বিশেষ জ্ঞান দান করা হয়, সে প্রভূত কল্যাণ প্রাপ্ত হয়। আর উপদেশ তারাই গ্রহণ করে, যারা জ্ঞানসম্পন্ন।’ (সুরা বাকারা: ২৬৯)

জ্ঞান বৃদ্ধির জন্যে কিছু দোয়ার উল্লেখ রয়েছে হাদিসে। যেগুলো নিয়মিত পড়লে আল্লাহ তাআলা কল্যাণকর জ্ঞান বা ইলম দান করেন। তাই মুমিন মুসলমানের উচিত বেশি বেশি দোয়াগুলো পাঠ করা। নিচে তেমন দুইটি দোয়া অর্থ ও উচ্চারণসহ দেওয়া হলো।

১)  ِاللَّهُمَّ انْفَعْنِي بِمَا عَلَّمْتَنِي، وَعَلِّمْنِي مَا يَنْفَعُنِي، وَزِدْنِي عِلْمًا وأعُوْذُ بِاللَّهِ مِنْ حَالِ أهْلِ النَّار ‘আল্লাহুম্মানফা-নি বিমা আল্লামতানি, ওয়া আল্লিমনি মা ইয়ানফাউনি ওয়া জিদনি ইলমা, ওয়া আউজুবিল্লাহি মিন হালি আহলিন না-র।’

অর্থ: হে আল্লাহ! আমাকে আপনি যা শিখিয়েছেন, তা দিয়ে আমাকে উপকৃত করুন, আমার জন্য যা উপকারী হবে, তা আমাকে শিখিয়ে দিন এবং আমার ইলম (জ্ঞান) বাড়িয়ে দিন আর আমি জাহান্নামিদের অবস্থা থেকে হেফাজতের জন্য আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করি।
আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী (স.) এই দোয়া পড়তেন। (তিরমিজি: ৩৫৯৯; ইবনে মাজাহ: ২৫১; আবি শায়বা: ১০/২৮১)

২)  اللَّهُمَّ فَقِّهْنِي فِي الدِّينِ ‘আল্লাহুম্মা ফাক্কিহনি ফিদ দীন।’ অর্থ: হে আল্লাহ! আমাকে দ্বীনের জ্ঞান দান করুন।
আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, একবার নবী (স.) শৌচাগারে গেলেন, তখন আমি তার জন্য অজুর পানি রাখলাম। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, এটা কে রেখেছে? আমি রেখেছি জানানো হলে তিনি বলেন, ‘আল্লাহুম্মা ফাক্কিহহু ফিদ দীন।’ অর্থ: ‘ইয়া আল্লাহ! আপনি তাকে দীনের জ্ঞান দান করুন।’ (বুখারি: ১৪৩)

উল্লেখ্য, অন্য কারও জন্য দোয়া করার ক্ষেত্রে উল্লিখিত শব্দে দোয়া করতে হবে। আর নিজের জন্য করতে চাইলে ওপরের মতো করে পড়তে হবে। অর্থাৎ ‘আল্লাহুম্মা ফাক্কিহনি ফিদ দীন’ পড়তে হবে।

স্মরণ রাখতে হবে, দোয়া করার সঙ্গে সঙ্গে জ্ঞানী বা আলেমদের কাছ থেকে ইলমের তালিম নিতে হবে। হাদিসে এসেছে, ‘আলেমরা নবীদের উত্তরাধিকারী। তারা কোনো স্বর্ণমুদ্রা বা রৌপ্য মুদ্রার উত্তরাধিকার রেখে যান না, তারা রেখে যান জ্ঞানের উত্তরাধিকার।’ (আবু দাউদ: ৩৬৪১)

তাই তো আলেমদের সঙ্গে বিদ্বেষ পোষণ করা নাজায়েজ। হাদিসে কুদসিতে আছে- আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘যে ব্যক্তি আমার কোনো ওলির সঙ্গে শত্রুতা করবে, আমি তার সঙ্গে যুদ্ধ ঘোষণা করলাম।’ (সহিহ বুখারি: ৬৫০২)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে আলেমদের কাছ থেকে ইলম অর্জনের তালিম নেওয়ার পাশাপাশি উল্লেখিত দোয়ার উপর বেশি বেশি আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

জাগ্রত জয়পুরহাট
জাগ্রত জয়পুরহাট