• মঙ্গলবার   ৩১ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৮ ১৪২৯

  • || ০৯ রজব ১৪৪৪

জাগ্রত জয়পুরহাট

ইসলাম ‘ভালো বন্ধু’ বলেছে যাদের

জাগ্রত জয়পুরহাট

প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারি ২০২৩  

বন্ধুত্ব এমন একটি সামাজিক বন্ধন, যা মানুষকে আত্মার বন্ধনে আবদ্ধ করে রাখে। মানুষের জীবনে বন্ধুত্বের গুরুত্ব অপরিসীম। আরবিতে বন্ধুকে বলা হয়- ‘খলিল’। যেহেতু মানুষ বন্ধু ছাড়া চলতে পারে না; সেহেতু বন্ধু গ্রহণের ক্ষেত্রে সতর্ক হতে হবে। এ প্রসঙ্গে নবীজি (স.) বলেছেন, ‘মানুষ তার বন্ধুর রীতিনীতি অনুসরণ করে। কাজেই তোমাদের প্রত্যেকেই যেন লক্ষ করে, সে কার সঙ্গে বন্ধুত্ব করছে।’ (আবু দাউদ: ৪৮৩৩)

সৎ এবং পরহেজগার বন্ধু নির্বাচন প্রসঙ্গে কোরআন ও হাদিসে বিভিন্নভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘আর ঈমানদার পুরুষ এবং ঈমানদার নারী একে অপরের বন্ধু। তারা ভালো কথার শিক্ষা দেয় এবং মন্দ কাজ থেকে বিরত রাখে। নামাজ প্রতিষ্ঠিত করে, জাকাত দেয় এবং আল্লাহ ও রাসুলের নির্দেশ অনুযায়ী জীবন-যাপন করে। তাদের ওপর আল্লাহ অনুগ্রহ করবেন। নিশ্চয় আল্লাহ পরাক্রমশালী সুকৌশলী।’ (সুরা তাওবা: ৭১)

ইসলামি স্কলারদের মতে, যারা মহান আল্লাহর জন্য পরস্পরকে ভালোবাসে, তাঁর খাতিরে সমবেত হয়, পরস্পরের খবরাখবর নেয় ও পারস্পরিক যোগাযোগ বহাল রাখে, আল্লাহর ভালোবাসাই তাদেরই প্রাপ্য। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণিত হাদিসে রাসুলুল্লাহ (স.) ইরশাদ করেছেন, ‘এক ব্যক্তি তার কোনো (মুসলমান) ভাইয়ের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য অন্য গ্রামে রওনা হয়, পথে আল্লাহ তার জন্য একজন ফেরেশতা বসিয়ে দেন। অতঃপর তিনি এ-ও বলেন যে, (ফেরেশতা তাকে বলেন) নিশ্চয়ই আল্লাহ তোমাকে এরূপ ভালোবাসেন, যেরূপ তুমি আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে অমুক ব্যক্তিকে ভালোবাস।’ (মুসলিম: ২৫৬৭)

ইসলামের দৃষ্টিতে বন্ধুত্ব যেমন উপযুক্ত লোকের সঙ্গে করা উচিত, সারাজীবন ওই বন্ধুত্ব অটুট রাখার জন্য চেষ্টা করাও উচিত। পারস্পরিক সামাজিক সৌজন্য চর্চা করা, দাওয়াত দিলে রক্ষা করা, দয়ার বিনিময়ে দয়া জানানো, কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা, খাটো বা বিদ্রূপ না করা, অসুখ বিসুখে দেখতে যাওয়া ইত্যাদি বন্ধুর অধিকার এবং বন্ধুত্ব টিকিয়ে রাখার উপায়। এসবের গুরুত্ব রয়েছে ইসলামে। প্রত্যেকটা কাজই নেক আমলের অন্তর্ভুক্ত।

স্বার্থের জন্য, জাতিগত বা দলগত পরিচয়ের ভিত্তিতে যেসব বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে সেসব বন্ধুত্ব বেশিদিন স্থায়ী হয় না। তাই বন্ধুত্ব নির্বাচনে সাবধান হতে হবে।  স্বার্থ ছাড়া মুসলিম ভাইকে ভালবাসা একটি বড় ইবাদত এবং ঈমানের দাবী। রাসুল (স.) মুমিনদের উদাহরণ দিয়েছেন একটি দেহের মতো, একজন ব্যক্তির মতো অথবা একটি দালানের মতো। যার এক অংশ অন্য অংশকে শক্তিশালী করে। আবার কোন কারণে শরীরের কোন অঙ্গ অসুস্থ হলে পুরো শরীর অসুস্থ হয়ে পড়ে। (বুখারি:৪৮১; মুসলিম: ২৫৮৬; মেশকাত: ৪৯৫৫)

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘আপনি নিজেকে তাদের সঙ্গে আবদ্ধ রাখুন, যারা সকাল-সন্ধ্যায় তাদের পালনকর্তাকে তার সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে আহ্বান করে এবং আপনি পার্থিব জীবনের সৌন্দর্য কামনা করে তাদের থেকে নিজের দৃষ্টি ফিরিয়ে নেবেন না। যার মনকে আমার স্মরণ থেকে অবচেতন করে দিয়েছি, যে নিজের প্রবৃত্তির অনুসরণ করে এবং যার কার্যকলাপ হচ্ছে সীমা অতিক্রম করা, আপনি তার আনুগত্য করবেন না।’ (সুরা কাহাফ: ২৮)

তাই কারো সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলার ক্ষেত্রে আগে যাচাই করা উচিত, লোকটা ঈমানদার কি না। এ ব্যাপারে গুরুত্বারোপ করতে গিয়ে মহানবী (স.) বলেন, ‘তুমি মুমিন ব্যক্তি ব্যতীত অন্য কারো সঙ্গী হবে না এবং তোমার খাদ্য যেন আল্লাহভীরু মানুষ খায়।’ (আবু দাউদ: ৪৮৩২)

সুতরাং পরকালের কল্যাণেই বন্ধুত্ব গড়ে তোলা উত্তম। আর তাতেই প্রত্যেকে হয়ে ওঠবে পরিপূর্ণ ঈমানদার। প্রিয়নবী (স.)-এর নির্দেশনাও হুবহু এমন। আবু ইমামাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (স.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর জন্য কাউকে ভালবাসে, আর আল্লাহর জন্য কারো সঙ্গে বিদ্বেষপোষণ করে এবং আল্লাহর জন্যই দান-খয়রাত করে আবার আল্লাহর জন্যই দান-খয়রাত থেকে বিরত থাকে সে যেন ঈমান পূর্ণ করল।’ (আবু দাউদ, মেশকাত: ৩০; সহিহাহ: ৩৮০)

আল্লাহ তাআলা আমাদের সবাইকে কোরআন-সুন্নাহর নির্দেশনা অনুযায়ী প্রত্যেকটি কাজ করার, সারাটি জীবন অতিবাহিত করার তাওফিক দান করুন। আমিন। 

জাগ্রত জয়পুরহাট
জাগ্রত জয়পুরহাট