• বুধবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১৩ ১৪২৯

  • || ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

জাগ্রত জয়পুরহাট

হিমালয় জয় করে প্রশংসায় ভাসছেন সানজিদারা

জাগ্রত জয়পুরহাট

প্রকাশিত: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২  

সাফ ফুটবল ফাইনালের আগে নিজের ফেসবুক পেজে ফুটবলের প্রতি আবেগ ও বাস্তবতার কথা তুলে ধরে জয়ের প্রত্যয়ের কথা পোস্ট করেছিলেন বাংলাদেশের সানজিদা আক্তার, যা রীতিমতো ভাইরাল হয়ে যায়।

আর যার নেতৃত্বে ভর করে দেশের কোটি মানুষ জয়ের স্বপ্ন দেখার সুযোগ পেয়েছে সেই সাবিনা মাকে ফোন করে জয়ের জন্য সবার দোয়া চেয়েছিলেন। সেই হিমালয়ের প্রান্ত থেকে ফোনে মাকে নিজেদের আত্মবিশ্বাসের কথাও বলেছিলেন সাবিনা। শেষ পর্যন্ত সাবিনাদের আত্মবিশ্বাসের জয় হয়েছে।

সোমবার নেপালের কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে স্বাগতিকদের ৩-১ গোলে হারিয়ে নতুন ইতিহাস গড়েছে বাংলাদেশের মেয়েরা। এই জয়ের মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো সাফে ট্রফি জয়ের উল্লাসে মাতোয়ারা হয় সাবিনা খাতুনরা।

শুধু সাবিনারাই নন, তাদের এই আনন্দে উদ্বেলিত কোটি কোটি বাঙালিও। তাইতো আবেগ ধরে রাখতে পারেননি তারা। নারীদের জয়ের পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নারী ফুটবলারদের উল্লাসের ছবি পোস্ট করে সবাই নানাভাবে শুভেচ্ছা জানান তাদের।

সাবিনা-কৃষ্ণাদের ইতিহাস গড়া জয়ের জন্য অভিনন্দন জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়াও মন্ত্রিপরিষদের সদস্যরা, রাজনৈতিক দল ও সামাজিক নানা সংগঠন ও ফেসবুক ব্যবহারকারীদের পক্ষ থেকে অভিবাদন জানানো হয়েছে ফুটবলারদের৷ এই তালিকায় বাদ জাননি ক্রিকেট তারকারাও।

বাংলাদেশের জয়ের কিছুক্ষণের মধ্যেই মেয়েদের অভিনন্দন জানিয়ে ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম লিখেছেন, ‘চ্যাম্পিয়নশিপের মুকুট জেতায় প্রিয় বোনদের অনেক অভিনন্দন। সত্যিই তোমাদের সকলকে নিয়ে গর্ববোধ করছি সমস্ত খেলোয়াড় এবং সাপোর্ট স্টাফদের স্যালুট।’

খেলোয়াড়দের নিজেদের এলাকাতেও বইছে আনন্দের জোয়ার। কারও কারও বাড়িতে ভিড় করছেন আশপাশের মানুষ। সরকারের কর্মকর্তারা ফোন করে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন কোনো কোনো পরিবারের সদস্যদের।

অন্য খেলোয়াড়দের মতো সাতক্ষীরায় মানসুরার বাড়িতেও চলছে আনন্দ উৎসব। শারীর ভালো না থাকলেও বাংলাদেশের জয়ের পর আনন্দে মেলায় চলে গেছেন তার বাবা।

গণমাধ্যমকে মাসুরার বাবা মো. রজব আলী দলের জয় শেষে বলেন, ‘আমি তো আপনাদের আগেই বলেছিলাম বাংলাদেশ জিতবে। শরীরটা ভালো না, তারপরও অন্যরকম আনন্দ কাজ করছে। জয়ের পর আনন্দে বাড়ির পাশের মেলায় চলে এসেছি।'

এদিকে নানা বঞ্চনা ও সামান্য সুযোগ সুবিধার মধ্যেও নিজেদের এমন দক্ষ ফুটবলার হিসেবে নিজেদের গড়ে তোলায় প্রশংসা যেন একটু বেশিই প্রাপ্য শামসুন্নাহার-মনিকা চাকমাদের। অনেকে তাই শুভেচ্ছা জানানোর মাঝে তাদের সুযোগ সুবিধা বাড়ানোর কথাও বলেছেন।

বাংলাদেশ একাদশে খেলে যারা জয় এনে দিলেন- রুপনা চাকমা, শিউলি আজিম, শামসুন্নাহার, আঁখি খাতুন, মাসুরা পারভীন, মনিকা চাকমা, সানজিদা আক্তার (ঋতুপর্ণা চাকমা), মারিয়া মান্দা, সাবিনা খাতুন, কৃষ্ণা রানী সরকার ও সিরাত জাহান স্বপ্না (শামসুন্নাহার জুনিয়র)।

জাগ্রত জয়পুরহাট
জাগ্রত জয়পুরহাট