মঙ্গলবার   ২৩ জুলাই ২০২৪ || ৭ শ্রাবণ ১৪৩১

জাগ্রত জয়পুরহাট

প্রকাশিত : ১৪:৫৮, ২০ জুন ২০২৪

খুদি বাড়ি: বাংলাদেশের জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার ‘নিখুঁত’ বাড়ি

খুদি বাড়ি: বাংলাদেশের জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার ‘নিখুঁত’ বাড়ি
সংগৃহীত

ভিট্রা (Vitra) ক্যাম্পাসে বর্তমানে প্রতি বছর ৩,৫০,০০০ দর্শকদের আগমন ঘটে। ক্যাম্পাসটি কেবল একটি কর্পোরেট যাদুঘর নয় বরং সমসাময়িক স্থাপত্যের একটি অনন্য সংগ্রহ, যা বিশ্বের অন্যতম মর্যাদাপূর্ণ আসবাবপত্র কোম্পানি এবং একজন নির্মাতার দ্বারা প্রচারিত হয়ে আসছে। ক্যাম্পাসটি চার্লস এবং রে ইমসের মতো আধুনিকতার কিছু নেতৃস্থানীয় ডিজাইনারের সাথে গভীরভাবে যুক্ত। সেই ক্যাম্পাসের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে একটি ঢেউতোলা ধাতু পরিহিত একটি খাড়া ছাদের বাড়ি। কাঠামোর শিল্প চেহারায় প্রতিধ্বনিত বাড়িটি জুন মাসের রোদে জ্বলজ্বল করছে। ভিট্রা প্রকল্পটি স্থানীয় স্থাপত্যের গভীর অধ্যয়নের ফলাফল এবং ভবিষ্যতের টেকসই নকশার বাড়ি তৈরির এক অনন্য উদ্যোগ। এ প্রকল্পের বাড়িটির নাম দেওয়া হয়েছে খুদি বাড়ি (ছোট ঘর)। এ বাড়িটি দেখেই মনে হবে এ যেন গ্রামীণ পরিবেশে এক প্রশান্তির ঘর।

সুইজারল্যান্ডের সীমান্তের কাছে দক্ষিণ-পশ্চিম জার্মানির ওয়েইল-আম-রিনে একটি বিশাল উত্পাদন কমপ্লেক্সে রয়েছে। কমপ্লেক্সটি সুইস আসবাবপত্র এবং নকশা প্রস্তুতকারক গ্লাসের অন্তর্গত, ইমেস লাউঞ্জ চেয়ার এবং ভবিষ্যত প্যান্টন মোল্ডেড চেয়ারের মতো পণ্যের নির্মাতা। সেখানে ঢেউখেলানো ধাতব ছাদের কাঠামোটি দেখতে একটি বাতিক ছোট প্যাভিলিয়নের মতো। এটি এমন একটি বাড়ি যা বিশ্বের অন্যতম দরিদ্র দেশ বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনের সবচেয়ে বিপর্যয়কর পরিণতি মোকাবেলার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

খুদি বাড়িটি (বাংলায় "ছোট ঘর")  ভিট্রা ক্যাম্পাসে নকশা সংস্কৃতির একটি স্থায়ী স্থায়িত্ব হিসাবে নিজের জায়গা করে নিয়েছে। সেই ক্যাম্পাসে হারজোগ এবং ডি মেউরনের একটি শোরুম; ফ্র্যাঙ্ক গেহরির একটি নকশা জাদুঘর; তাদেও আদ্রোর একটি সম্মেলন কেন্দ্র; নিকোলাস গ্রিমশ এবং আলভারো সিজার কারখানা; এমনকি জাহা হাদিদের একটি ফায়ার স্টেশনও আছে।

জানা গেছে, ছোট্ট বাড়িটি নির্মাণ করতে ভিট্রার মাঝারি দামের একটি চেয়ার কেনার খরচের সমান খরচ হয়। যার মূল্য মজুরিসহ প্রায় ৫০০ ডলার। বাড়িটি নির্মাণ করা যতটা সহজ এবং পুনঃব্যবহারের জন্য ভেঙে ফেলাও ততটা সহজ। এটি বিশ্বব্যাপী ব্যবহারযোগ্য এবং তৈরির উপকরণগুলো যেমন-  বাঁশ, প্রোফাইলযুক্ত ধাতব শীট এবং অল্প কিছু ধাতব সংযোগকারী উপাদানগুলোও সহজলোভ্য।

এ খুদি বাড়িটির নির্মাতা বাংলাদেশী স্থপতি মেরিনা তাবাসসুম। বাংলাদেশের বন্যা প্রবণ জায়গায় আবাসন প্রদানের সমস্যার সমাধানের জন্য তিনি এ ডিজাইনের উদ্ভাবন করেন।

তাবাসসুম বলেন, বাংলাদেশের দুই-তৃতীয়াংশ অংশই ব-দ্বীপ। দেশটিতে ৭০০ টির মতো নদী আছে। দেশতে প্রতি বছর বন্যায় লাখো মানুষ তার আবাসস্থল হারিয়ে থাকে। এ কারণে আমি এবং আমার সহযোগী ডিজাইনাররা মিলে প্রথম এই ঘরগুলো বদ্বীপে ব্যবহার করেছিলাম। এখানে সেটি ওয়েইল-আম-রাইনে এটি একটি গ্রাম্য-চিক পিকনিক সেটের সাথে সম্পূর্ণভাবে সাদৃশ্যপূর্ণ।

যেসব এলাকাগুলোতে প্রতি বছরই বন্যা হয় সেখানে খুদে বাড়িটি সহজেই ব্যবহারযোগ্য হতে পারে বলে জানান তাবাসসুম। 

তাবাসসুম বলেন, যেসব এলাকাগুলোতে বার বার বন্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, সেসব স্থানে খুদি বাড়ি নির্মানে ফলে বাড়ি স্থানান্তর সহজ হয়ে যায়। মানে সাধারণ ও সহজলোভ্য কিছু উপকরণ দিয়ে তৈরি বাড়িটি যেমন সহজে ভেঙে ফেলা যায় তেমনি সহজে অন্য জায়গায় স্থানান্তরিত করে পুনরায় দাঁড় করানোও যাবে। 

তাবাসসুম আরো বলেন,  এ বাড়ির জন্য সাধারণ বাঁশ ও ঢেউতোলা ছাদ ও ইস্পাত সংযোগকারী (ছোট টিউবের একটি ঢালাই ক্লাস্টার) তৈরি করা দরকার। ঢালাই ক্লাস্টারের জন্য আমরা এরইমধ্যে স্থানীয় কোম্পানিগুলোর সাথে কাজ করছি যাতে ব্যবহারকারীরা সহজে ও প্রয়োজনে হাতে নাগালেই যেন পেতে পারে।

খুদি বাড়িটির নিচতলা খোলা রেখে উপরের তলায় জাপানিদের বাসস্থান করা হয়েছে। এটিতে একটি কাঠের ফ্রেম এবং সাদা প্যানেল রয়েছে, বড়, ঝকঝকে জানালা সহ কব্জাযুক্ত শাটার রয়েছে যা ক্রস বায়ুচলাচল এবং সাধারণ কাঠের ফ্লোরবোর্ডকে উৎসাহিত করে। এটি বিরল কিন্তু আরামদায়ক, সেই গভীর পিচটি একটি আলপাইন লজের মতো একটি অভ্যন্তীর তৈরি করে। যার ফলে নিচেরস্তরে পানি প্লাবিত হলেও উপরের বসবাসে কোনো অসুবিধা হবে না, বলে জানান তাবাসসুম।

নদীর পাড়ে বসবাসকারী মানুষরা পানির গতিবিধি দেখে বুঝতে পারে আরেকটি বন্যা আসছে কিনা। যার ফলে বন্যা আসার আগেই তারা ঘরবাড়ি ভেঙে ফেলতে পারে।

ভিট্রা (Vitra) ক্যাম্পাসে স্থপতিদের একটি দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে যা উজ্জ্বলভাবে ইঞ্জিনিয়ারড সমাধান দিয়ে বিশ্বের আবাসন সমস্যাগুলো সমাধান করার চেষ্টা করে। প্রকৃতপক্ষে, তাবাসসুমের ছোট্ট বাড়ির ঠিক পাশেই রয়েছে ডায়োজিন বাড়ি, যা রেঞ্জো পিয়ানো ২০১৩ সালে ডিজাইন করেছিলেন। এটি আরেকটি ন্যূনতম বাসস্থান, স্বায়ত্তশাসিত এবং যতটা সম্ভব কম খরচে নির্মাণ করা সম্ভব বলে দেখানো হলেও খুদি বাড়ির চেয়ে বেশি ব্যয়বহুল বলে মন্তব্য করেছেন ফেহলবাউম।

সূত্র: ডেইলি বাংলাদেশ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়

সর্বশেষ